উপজেলা পরিষদ নির্বাচন : কেন্দ্র পানে চেয়ে আছেন রাজবাড়ীর ৫ উপজেলার আঃলীগের প্রার্থীরা –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

উপজেলা নির্বাচনের ডামাডোল বেজে উঠেছে। যে কারণে মাঠ পর্যায়ে নেতা-কর্মীদের মাঝে উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে। তবে কেন্দ্রের দিকেই তাকিয়ে আছেন তারা। কে কে পাচ্ছেন কোন কোন উপজেলার চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও সংরক্ষিত নারী আসনের প্রার্থীতা। ইতোমধ্যে দলীয় সিদ্ধান্তের আলোকে রাজবাড়ীর ৫টি উপজেলায় সম্ভব্য প্রার্থীদের তালিকা চুড়ান্ত করেছে আওয়ামীলীগ।
দলীয় নেতারা জানান, তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে রাজবাড়ী সদর, পাংশা, গোয়ালন্দ ও বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ঘোষনা করা হয়েছে। তবে জেলার কালুখালী উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের ঘোষনা আরো দেরিতে হতে পারে। ইতোমধ্যে ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে দশ জনের অধিক চেয়ারম্যান প্রার্থী কেন্দ্র থেকে দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহের পর তা জমা দিয়েছে। আগামী ২২ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত হবে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নির্বাচনী কমিটির সভা। ওই সভায় মনোনয়পত্র জমা দেয়া চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মনোনয়পত্র যাচাই বাছাই শেষে আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রার্থীতা ঘোষনা করা হবে। ফলে বেশির ভাগ প্রার্থী নিয়মিত ভাবে করছেন রাজধানী ঢাকায় যাতায়াত এবং করছেন দলীয় নেতাদের সাথে লবিং। ফলে বেশির ভাগ প্রার্থীকে ভোটের মাঠে সরব হতে দেখা যাচ্ছে না। একাধিক সম্ভব্য প্রার্থী বলেছেন, দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে তারা যাবে না। তাই দলীয় মনোনয়ন চুড়ান্ত হলেই তারা ভোটের মাঠে নামবেন।
আঃলীগের দলীয় সূত্রে জানাগেছে, রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলায় শুধুমাত্র একক চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে উপজেলা আঃলীগের সভাপতি শফিকুল মোর্শেদ আরুজ-এর নাম ঘোষনা করা হয়েছে। তবে সেখানকার চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে আরো একাধিক প্রার্থী দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছে বলে শোনা যাচ্ছে। সেই সাথে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে পাংশা উপজেলা আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তফা মাহমুদ হেনা মুন্সী এবং সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে পাংশা পৌর আওয়ামীলীগের সদস্য ও বর্তমানে মাছপাড়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা সফুরা খাতুনের নাম স্থানীয় আঃলীগ চুড়ান্ত করেছে। এছাড়া রাজবাড়ী সদর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ভোটাভুটির মাধ্যমে প্রার্থী চুড়ান্ত করেছে আঃলীগ। চেয়ারম্যান পদে দলটি তিন জনের নাম কেন্দ্রে পাঠিয়েছে। তারা হলো, রাজবাড়ীর পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শফি, জেলা আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এসএম নওয়াব আলী এবং সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এ্যাডঃ ইমদাদুল হক বিশ^াস। ভাই চেয়ারম্যান পদে পৌর আঃলীগের সহ-সভাপতি এ্যাডঃ খান মোঃ জহুরুল হক ও জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি মীর মাহফুজা খানম মলি। গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামীলীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে উপজেলা আঃলীগের সাধারণ সম্পাদক ও দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নরুল ইসলাম মন্ডল, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম মন্ডল ও উপজেলা আঃলীগের সভাপতি মোঃ নুরুজ্জামান মিয়া, ভাইস চেয়ারম্যান পদে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান চৌধুরী, গোয়ালন্দ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল বাতেন ও উপজেলা আঃলীগের যুব বিষয়ক সম্পাদক ফজলুল হক এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে আঃলীগ কর্মী নাজমা বেগম, নারগীস পারভীন ও গোয়ালন্দ উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি সাহিদা আক্তার। বালিয়াকান্দি উপজেলা চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী হিসেবে বালিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক শামছুল আলম মিয়া সুফি, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কালাম আজাদ, রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ফকরুজ্জামান মুকুটের নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। সেই সাথে ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আঃলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন অর রশিদ হারুন ও অপর সাংগঠনিক সম্পাদক সনজিৎ কুমার রায় এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা মহিলা লীগের সভাপতি খোদেজা বেগম ও সাধারণ সম্পাদক বাসন্তি স্যানালকে সম্ভব্য প্রার্থী করা হয়েছে। কালুখালীতে চেয়ারম্যান পদে ৭ জনের নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। তারা হলো, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী সাইফুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও সাওরাইল ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম (আলী), উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও রতনদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী হাচিনা পারভীন, উপজেলা আওয়ামীলীগের কোষাধ্যক্ষ মোঃ মোক্তার হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও মৃগী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুজ্জামান সাগর, মদাপুর ইউপি আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এ বি এম রোকনুজ্জামান ও ন. আ. মু. জুলফিকার আলী।
সদর উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এসএম নওয়াব আলী জানান, তারা কেন্দ্রের পানে চেয়ে আছেন। নানা অত্যাচার ও জেলখাটার পরও দলেরপ্রতি আনুগত্যে তিনি অটল। দীর্ঘ সময় তিনি সদর উপজেলা আওয়মীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদে থেকে দলকে করেছেন সংগঠিত। ফলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাকেই এবার প্রার্থী করবেন এবং তিনি প্রার্থী হলে বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন।

(Visited 485 times, 1 visits today)