কৌশলে রাজবাড়ী-২ আসনের নির্বাচনী কর্মকর্তা পরিবর্তনের চেষ্টা –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

সুকৌশলে সহকারী রিটানিং অফিসারের অবর্তমানে রাজবাড়ী-২ আসনের কালুখালী উপজেলার কর্তব্যরত ২৩ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারের কেন্দ্র পরিবর্তন ও দুই জনের নাম কর্তনের ঘটনা প্রকাশ পেয়েছে। ওই ঘটনায় জেলার কালুখালী উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সেলিনা খাতুন এবং দুই জন ডাটাএন্ট্রি অপারেটরের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
সহকারী রিটানিং অফিসার ও কালুখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুন নাহার জানান, রাজবাড়ী-২ আসনের নির্বাচনের লক্ষে কালুখালী উপজেলায় ৪৬টি কেন্দ্র রয়েছে। ওই কেন্দ্র গুলোর জন্য ৪৬জন প্রিজাইডিং অফিসার, ২৩৭টি বুথের জন্য ২৩৭ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার এবং ৪৬৪ জন পুলিশ অফিসার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ওই সব ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণও প্রদান করা হয়েছে। গত ২৩ ডিসেম্বর তিনি নির্বাচন সংক্রান্ত সভায় যোগ দিতে রাজধানী ঢাকায় যান। ওই দিন কালুখালী উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সেলিনা খাতুন সুকৌশলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের ডাটাএন্ট্রি অপারেটর ফরিদ মৃধা ও ফয়সাল পারভেজকে দিয়ে ওই সব নির্বাচনী কর্মকর্তার তালিকার ২৯টি প্যানেলে প্রবেশ করে ২৩ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারের নির্বাচনী কেন্দ্র পরিবর্তন, দুই জনের নাম কর্তন এবং দুই জনের নাম সংযোজন করেন। পরবর্তী দিন তিনি ঢাকা থেকে এসে ডাটাএন্ট্রি অপারেটরদের ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাদের তালিকা প্রিন্ট দিতে বলেন। তবে তিনি ওই কপি হাতে নিয়ে সন্দহ পোষণ করেন এবং ব্যক্তিগত ল্যাপটব থাকা তালিকা প্রিন্ট দেন। আর ওই দু’টি তালিকা হাতে নেবার পরই তালিকা ট্যাম্পারিং-এর বিষয়টি পরিস্কার হয়। তিনি ডাটাএন্ট্রি অপারেটরদের জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার নায়িকা কালুখালী উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সেলিনা খাতুন পান। ওই সময়ই বিষয়টি তিনি লিখিত ভাবে জেলা রিটানিং অফিসারকে অবহিত করেন। তিনি আরো বলেন, অত্যান্ত নজরদারীর মধ্য দিয়ে তার কার্যালয়ের ডাটাএন্ট্রি অপারেটর ফরিদ মৃধা ও ফয়সাল পারভেজকে দিয়ে বর্তমানে কাজ করাচ্ছেন। কারণ তারা প্রশিক্ষিত জনবল। তবে তাদের বিরুদ্ধে নির্বাচনের পর বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হোসনে ইয়াসমিন করিমি জানান, রিটানিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোঃ শওকত আলী বিষয়টি তাকে অবহিত করেন এবং কালুখালী উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সেলিনা খাতুনের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দেন। যে কারণে ঘটনাটির সরজমিন তদন্ত করেছেন এবং তদন্তে ঘটনার সত্যতাও পেয়েছেন। যার ভিত্তিতে তিনি কালুখালী উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সেলিনা খাতুনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গতকাল বুধবার প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহা-পরিচালক (ডিজি) বরবর পত্র প্রদান করেছেন।
তবে এ বিষয়ে জানতে গতকাল সন্ধ্যায় কালুখালী উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সেলিনা খাতুনের মুঠোফোনে একাধিকার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
রিটানিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোঃ শওকত আলী জানান, দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

(Visited 345 times, 1 visits today)