গোয়ালন্দে এবার ধর্ষণের শিকার হলো ছয় বছরের শিশু ! অভিযুক্ত গ্রেফতার –

আজু সিকদার, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

 

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে শিশু শ্রেণির এক ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই শিশুকে বর্তমানে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় আকির হোসেন (২০) নামের যুবককে ধর্ষণের অভিযোগে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
ধর্ষণের শিকার ওই শিশুর বাবা জানান, তিনি ঢাকায় একটি বাড়িতে দারোয়ানের কাজ করেন। তিনি চার কন্যা সন্তানের জনক। গ্রামে তার স্ত্রী মেয়েদের নিয়ে থাকে। বছর খানেক আগে বড় মেয়েকে বিয়ে দিতে গিয়ে তিনি অনেক টাকা ঋনী হয়ে যান। সেই ঋন শোধ করতে গত ঈদের পরে তার স্ত্রীকে বিভিন্ন বাসায় ঝিয়ের কাজ করার উদ্দেশ্যে ঢাকা নিয়ে যান। আর বাড়িতে বড় মেয়ের কাছে তার অপর তিন মেয়েকে রেখে যান। গত রোববার সন্ধ্যার পর তার ছয় বছর বয়সী তৃতীয় মেয়েকে টিভি দেখার কথা বলে ফুঁসলিয়ে নিয়ে ধর্ষণ করে জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভকলা ইউনিয়নের ভাগুলপুর গ্রামের রতন ফকিরের ছেলে ঢাকায় একটি গার্মেন্টেসে কাজ করা আকির হোসেন (২০)। এতে তার শিশু কন্যা অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তার বড় মেয়ে অসুস্থ্যতার কথা তার স্ত্রীকে জানায়। খবর পেয়ে সোমবার সকালে তার স্ত্রী বড়িতে এসে এই ধর্ষণে কথা জানতে পেরে তাকেও জানায়। ওইদনি বিকেলেই তিনি বাড়িতে এসে আকিরের পরিবারের কাছে বিচার চায়। এতে আকির ও তার পরিবার তার উপর মারমুখি হয়ে এ নিয়ে বাড়াবাড়ি না করার হুমকি দেয়। এ পরিস্থিতিতে তিনি মেয়েকে নিয়ে প্রথমে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় অভিযোগ দিতে গেলে থানা থেকে তাকে প্রথমে মেয়ের চিকিৎসা ও ডাক্তারী পরীক্ষা করিয়ে অভিযোগ দিতে বলেন বলে তিনি জানান।
তিনি আরো জানান, থানা থেকে তার শিশু মেয়েকে প্রথমে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। সেখানে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করে। স্বাস্থ্য পরীক্ষার রিপোর্ট পেয়ে তিনি এ ব্যাপারে মামলা করবেন বলে তিনি জানান।
গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. নুরুল ইসলাম জানান, ওই শিশুটি শারিরীক ভাবে অসুস্থ্য ছিল। এছাড়া এখানে গাইনী বিভাগের চিকিৎসক না থাকায় তাকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।
এদিকে, সরেজমিন মঙ্গলবার অভিযুক্তের বাড়িতে গেলে তার মা লাইলী বেগম জানান, তার ছেলে এ ঘটনার সাথে কোন ভাবেই জড়িত নয়। তাহলে কেন তার নাম আসছে বা ওই পরিবারের সাথে তাদের কোন শত্রুতা আছে নাকি জানতে চাইলে তিনি বলেন, কেন এ ধরনের অভিযোগ তারা করছে তা বলতে পারব না তবে তাদের সাথে আমাদের কোন শত্রুতাও নেই।
এসময় অভিযুক্ত আকির হোসেন দাবি করেন, এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি।
এ বিষয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম জানান, এ ব্যাপারে এখনো লিখিত কোন অভিযোগ পাইনি। তবে মৌখিক ভাবে বিষয়টি জেনেই অভিাযান চালিয়ে ওই এলাকা থেকে অভিযুক্ত আকির হোসেনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের গাইনী বিভাগের চিকিৎসক ডা. সেলিনা কামাল রিমা জানান, শিশুটির স্পর্শকাতর স্থানে ক্ষত চিহ্ন আছে। তবে অন্যান্য পরীক্ষার চুড়ান্ত রিপোর্ট পেলে শিশুটি ধর্ষণের শিকার হয়েছে কি না তা নিশ্চিত হওয়া যাবে।

(Visited 254 times, 1 visits today)