গোয়ালন্দে বিদায় সংবর্ধনা প্রদান, প্রিয় স্যার সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান…….

শফিকুল ইসলাম শামীম, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

প্রিয় স্যার। যার সানিধ্যে কাজ করতে পেরে আমি ধন্য। দীর্ঘ বর্ণাঢ্য জীবনে বেশি ভাগ সময় রাজবাড়ীতে কাঁটিয়েছেন। রাজবাড়ী উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে কর্মজীবন শুরু করে রাজবাড়ী জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হিসেবে দীর্ঘদিন চাকরী করেছেন। এখনও রাজবাড়ী জেলার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে থেকে সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। রাজবাড়ী জেলার সর্বসাধারণের কাছে সিদ্দিক স্যার হিসেবে পরিচিত। স্যারের কাছে গিয়ে কখনও ফিরে আসতে হয়নি। দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুল উন্নয়ন হওয়ার পিছনে যাদের অবদান রয়েছে। তার মধ্যে স্যার বিশেষ ভাবে উল্লেখযোগ্য। কাঁন্নাজরীত কণ্ঠে কথাগুলো বলতে বলতে ভেঙ্গে পরেন দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ সহিদুল ইসলাম। তিনি বলেন, দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুল উন্নয়নের জন্য স্যারের কাছে যত বার গিয়েছি তিনি আনন্দের সাথে কাজ করেছেন। উন্নত শিক্ষার ব্যাপারে কোন অন্যায়ের সাথে আপোষ করতে দেখিনি।
রাজবাড়ী জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান এর শেষ কর্মদিবস উপলক্ষে রবিবার সকালে দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুলের হল রুমে আলোচনা সভায় বক্তব্য দিতে গিয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক সহ সকল শিক্ষকও ছাত্র-ছাত্রীরা কাঁন্নায় ভেঙ্গে পরেন। আলোচনা শেষে দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুল গার্ল-ইন স্কাউট গ্রপ এর পক্ষ থেকে রাজবাড়ী জেলা শিক্ষা অফিসার সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমানে বিদায়ী সম্মাননা ক্রেস্ট দেন।
শেষ কর্মদিবসে রাজবাড়ী জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান স্কুলের শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে নিয়ে তিনটি বৃক্ষ রোপন করেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, গোয়ালন্দ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ মাসুদুর রহমান, দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মোঃ সেলিম রেজা প্রমুখ।
আলোচনা সভায় গোয়ালন্দ মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ মাসুদুর রহমান বলেন, আমি এক বছরের বেশি সময় গোয়ালন্দ উপজেলায় শিক্ষা অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। কাজ করতে গিয়ে স্যারে সার্বিক সহযোগিতা পেয়েছি। উন্নত শিক্ষার ব্যাপারে স্যারের সকল প্রকার পরামর্শ পেয়েছি। স্যারের বিদায়ে আমি আজ একজন অভিভায়ক হারালাম। তবে চাকরী জীবন এমনি জীবন। এক সময় আমাকেও বিদায় নিতে হবে।
রাজবাড়ী জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান বলেন, শিক্ষা অফিসার হিসেবে আজকের এই পরিদর্শন আমার শেষ পরিদর্শন। শিক্ষা অফিসার হিসেবে আর কোন দিন আমি আপনাদের মাঝে আসবো না। তবে গোয়ালন্দে সকল স্কুলের শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদের কথা আমার মনে পড়বে। সামাজিক কর্মে হয়ত সকলের সাথে আমার দেখাও হবে।
সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান আরো বলেন, আমি যখন রাজবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলাম। এখন কার অনেকে তখন প্রধান শিক্ষক ছিলেন। তবুও আমি চেষ্টা করেছি সকলের সাথে সম্পর্ক ভাল রেখে চাকরী করতে। তবুও আমার দীর্ঘ জীবন কর্মে যদি কোন ভুল হয়ে থাকে তাহলে সকলে ক্ষমা দৃষ্টিতে দেখবেন।

(Visited 123 times, 1 visits today)