পাংশা-কালুখালী-বালিয়াকান্দি উপজেলা যুবলীগ-ছাত্রলীগের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত-

মাসুদ রেজা শিশির/এস,কে পাল, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে বাংলাদেশের অন্যতম শক্তিশালী সংগঠন আওয়ামীলীগে কিছু অনুপ্রবেশকারী ঢুকে পড়েছে। যারা বিএনপি-জামায়াতের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে চায়। এসকল অনুপ্রবেশকারীরা দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করে বিএনপি-জামায়াতের সাথে রাতের আঁধারে গোপন মিটিং করে এদেশে বিএনপিকে পুনরায় ক্ষমতায় আনতে চায়। তাদের এসকল আশা আর কোনদিনই বাংলাদেশে বাস্তবায়ন হবে না। এসকল অনুপ্রবেশকারীদের বেছে বেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। বিগত দিনে আওয়ামীলীগ সাধারণ জনগণকে সাথে নিয়ে সকল অপশক্তি রুখে দিয়েছে। বর্তমানে বিএনপি-জামায়াত এলাকায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে চুরি-ডাকাতি, ছিনতাই-রাহাজানি করার চেষ্টা করছে। বিএনপি-জামায়াত যাতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে না পারে সেদিকে আমাদের খেয়াল রাখতে হবে। আওয়ামীলীগ এখন একটি শক্তিশালী, সু-সংগঠিত দল। তার সাথে এখন ছাত্রলীগ-যুবলীগও সু-সংগঠিত ভাবে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। দলে অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদ্ধে জননেত্রী শেখ হাসিনা নিজেই ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। আপনারা জানেন ২০০১ সালের নির্বাচনেও আওয়ামীলীগের নিশ্চিত বিজয় জেনে বিএনপি-জামায়াত আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়ে আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় আসতে দেয়নি। ২০০১-২০০৬ সাল পর্যন্ত তারা আওয়ামীলীগের ২১ হাজার নেতাকর্মীদের হত্যা করেছে। ২০১৪ সালের নির্বাচনের পরেও দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তারা ব্যর্থ হয়েছে। কারণ জনগণ তাদেরকে আর চায় না। শেখ হাসিনার অধীনেই আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠি হবে। আগামী নির্বাচনকে ঘিরে দল থেকে প্রত্যেকটি এলাকায় কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তাই আগামী নির্বাচনে এসকল কেন্দ্রীয় কমিটিতে ছাত্রলীগ-যুবলীগকে একটি অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। পাংশা-কালুখালী-বালিয়াকান্দির অনেক নেতাই এখন তাদের ভুল বুঝতে পেরে জিল্লুল হাকিমের পেছনে ঘুরছে। এসকল নেতারা বুঝতে পেরেছেন রাজবাড়ী-২ আসনে জিল্লুল হাকিমের কোন বিকল্প নাই। আমরা মাঝে মাঝে দেখি রাজবাড়ী-২ আসন থেকে কিছু বিএনপি-জামায়াতপন্থীরা আওয়ামীলীগের মনোনয়ন চাচ্ছে। অথচ এলাকায় তাদের পোস্টার লাগানোর জন্য আওয়ামীলীগের কোন কর্মীদের দেখা যায় না, দেখা যায় বিএনপি-জামায়াতপন্থী কর্মীদের। তাহলে তারা কিভাবে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশা করে। জননেত্রী শেখ হাসিনা নিজে বলেছেন, রাজবাড়ীতে জিল্লুল হাকিমকে আমি পাঠিয়েছি। সেখানে অন্য কেউ আসবে কি আসবে না সেটা আমি দেখব। তিনি আরো বলেছেন, বৃহত্তর ফরিদপুর নিয়ে কাউকে ভাবতে হবে না।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম এমপি’র বাসভবনে পাংশা-কালুখালী-বালিয়াকান্দি উপজেলা যুবলীগ-ছাত্রলীগের মতবিনিময় সভায় রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম সদস্য বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আশিক মাহমুদ মিতুল প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি ছাত্রলীগ-যুবলীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, আপনারা ধৈর্য্য ধারণ করুন। আপনারা দলে অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদে শক্ত অবস্থান তৈরী করুন। তারা যেন দলের মধ্যে কোন কোন্দল সৃষ্টি করতে না পারে। আগামী সংসদ নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে কোন অনুপ্রবেশকারী যাতে ঢুকতে না পারে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখবেন। আপনাদের কার্যক্রম ও যোগ্যতার ভিত্তিতেই আগামী দিনে আপনারাই দলের নেতৃত্ব দিবেন। এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, পাংশা উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মোঃ ফজলুল হক ফরহাদ, যুগ্ম-আহ্বায়ক জালাল উদ্দিন বিশ্বাস, কালুখালী উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান চৌধুরী (মবি), যুগ্ম-আহ্বায়ক রাকিবুল ইসলাম লাবু, বালিয়াকান্দি উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক রাসেল খান রিজু, যুগ্ম-আহ্বায়ক শফিকুর রহমান তুহিন, পাংশা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিদুল ইসলাম মারুফ, সাধারণ সম্পাদক খন্দকার তাজবীর হাসান সিসিল, কালুখালী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম সুমন, বালিয়াকান্দি উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আনিসুর রহমান আনিস, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আল-মামুন প্রমুখ। মতবিনিময় সভায় ৩টি উপজেলার ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতাকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।

(Visited 438 times, 1 visits today)