কালুখালী-ভাটিয়াপাড়া রেল লাইন স্টেশনগুলো ফিরে পেয়েছে প্রাণ ! –

সোহেল রানা, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

 

রাজবাড়ীর কালুখালী-ভাটিয়াপাড়া মেইল ট্রেন স্টেশন গুলোতে দাড়িয়ে যাত্রী উঠানোর ফলে যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছে। ১৩টি স্টেশনে বিরতি দেওয়ার ফলে প্রতিদিনই বাড়ছে স্টেশনে যাত্রীদের ভীড়। চালুর পর দীর্ঘদির নগদ টাকা আদায় করা হলেও যাত্রীকে টিকিট দেওয়া হতো না। দীর্ঘদিন যাবৎ এ ভাবেই ভাটিয়াপাড়া-কালুখালী রেল পথে ভাড়া আদায়ে চরম দুর্নীতি ও অনিয়ম হয়। বিষয়টি এ টিকিট চালু করায় তা বন্ধ হয়েছে। ফলে লাভের মুখ দেখতে পাবে রেলওয়ে।
বহরপুর রেল স্টেশনে উপস্থিত শত শত যাত্রী। তারা টিকিট নিয়ে ট্রেনে উঠছে। বিনা টিকিটে রেল ভ্রমনের প্রবনতা এখন হ্রাস পেয়েছে। বহরপুর থেকে ভাটিয়াপাড়া গামী যাত্রী সুবহান, নাঈম, খায়ের আলী, নুরুল ইসলামসহ আরও অনেক যাত্রী বলেন, ট্রেনের ভিতরে টিটিই, রেল পুলিশ এবং তাদের নিয়োজিত সিভিল পোশাকে ভাড়া হিসেবে টাকা তুলতেন। এখন স্টেশনে আমাদেরকে টিকিট দেওয়া হয়। এতে যাত্রীরাও নিরাপদ থাকে ও রেলওয়ে কোম্পানী লাভের মুখ দেখবে। বালিয়াকান্দির জামালপুর রেল ষ্টেশনে একই চিত্র। ট্রেনের অপেক্ষায় যাত্রীরা দাড়িয়ে আছে। স্টেশনগুলোতে যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছে।
পল্লী চিকিৎসক কিউ আর মহব্বত জানান, রাজবাড়ি থেকে ছেড়ে আসা একটি মেইল ট্রেন বহরপুর রেল স্টেশনে বেলা ১২টায় পৌছে। আগে দীর্ঘদিন স্টেশন গুলো বন্ধ থাকার কারণে স্টেশন গুলোতে মাদক ব্যবসায়ীদের আড্ডায় পরিনত হয়েছিল। এখন প্রতিটি স্টেশনে ট্রেন থামার কারণে এখন আবার প্রাণ ফিরে পেয়েছে স্টেশন গুলো।
রাজবাড়ি প্রধান রেল স্টেশন মাস্টার মোঃ কামরুজ্জামান জানান, আগে আন্তঃনগর ট্রেন ছিল । এখন একটি মেইল ট্রেন চালু করা হয়েছে।
রেলওয়ের প্রধান বিভাগীয় ম্যানেজার অসীম কুমার বলেন, আসলে এই রেল পথটি একটি স্টেজ থেকে অন্য স্টেজে আসার কারণে টিকিট প্রত্যেক স্টেশনে সরবরাহ করা হচ্ছে। এতে প্রাণ ফিরে পেয়েছে স্টেশন গুলো।

(Visited 138 times, 2 visits today)