রাজবাড়ীতে বন্দুক যুদ্ধে চরমপন্থী কমান্ডার ছাইদুল নিহতের ঘটনায় এসপি’র প্রেস ব্রিফিং –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

রাজবাড়ী সদর উপজেলার ধাওয়াপড়া জৌকুড়া বালুর ঘাট এলাকায় ডিবি পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে এমবিআরএম বাহিনীর আঞ্চলিক কমান্ডার ছাইদুল ওরফে আমির সরদার নিহত হবার ঘটনায় প্রেস ব্রিফিং করেছে রাজবাড়ী পুুলিশ সুপার।
আজ মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এ প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, রাজবাড়ী পুলিশ সুপার আসমা সিদ্দিকা মিলি বিপিএম।

পুলিশ সুপার বলেন, রাজবাড়ী সদর উপজেলার ধাওয়াপড়া জৌকুড়া বালুর ঘাট এলাকার পদ্মা নদীর পারে চরমপন্থীরা গোপন মিটিং করছে এমন সংবাদেঠ ভিত্তিতে রাজবাড়ীর ডিবি পুলিশ সেখানে অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় চরমপন্থীরা পুলিশের উপস্থিথি টের পয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। জবাবে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়ে। এর এক পর্যায়ে চরমপন্থীরা পিছু হঠলে সেখানে আহত অবস্থায় এমবিআরএম বাহিনীর আঞ্চলিক কমান্ডার ছাইদুল পড়ে থাকতে দেখে উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। এ সময় চরমপন্থীদের গুলিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ  রাকিব খানসহ ৩ পুলিশ সদস্য আহত হয়। ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশী এসএলআর, একটি বিদেশী দোনালা বন্দুক, ৩২ রাউন্ড গুলি, ২৩ টি কার্তূজ, ১টি ছোড়া, ৬টি কার্র্তূজের খোসা উদ্ধার করা হয়েছে। বন্দুক যুদ্ধের সময় পুলিশ পিস্তলের ৬ রাউন্ড গুলি ও ১৬টি শর্ট গানের কার্তূজ ফায়ার করা হয়েছে। নিহত চরমপন্থী ছাইদুল পাবনার আটঘরিয়ার চাচকিয়া এলাকার তাহামুুদ্দিনের ছেলে। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ছাইদুলের বিরুদ্ধে পাবানায় হত্যা, অস্ত্র, অপহরনসহ ৭টি মামলা রয়েছে।

ওই সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রেজাউল করিম, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (পাংশা সার্কেল) ফজলুল করিম, সদর থানার ওসি তারিক কামাল, ডিআইও ওয়ান জহুরুল ইসলাম, পুলিশ পরিদর্শক জিল্লুর রহমান, জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি কামাল হোসেন ভুইয়াসহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

(Visited 290 times, 24 visits today)