রাজবাড়ীতে পহেলা বৈশাখে দুই ছাত্রীকে যৌন হয়রানীর করার অভিযোগ, গ্রেপ্তার ১ –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

রাজবাড়ীতে পৃথক ভাবে ২ জন ছাত্রীকে যৌনহয়রানীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত সোমবার সকালে একটি ঘটনায় রাজবাড়ী থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা দায়েরের পর পরই পুলিশ যৌনহয়রানীকারী এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। অপর ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী (১৯) জানান, তার সাথে রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাট ইউনিয়নের পশ্চিম ভবদিয়া গ্রামের ইসলাম ফকিরের ছেলে বজলুর রহমান বিজয় (২৬)-এর সাথে বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ওই সম্পর্কের অংশ হিসেবে তারা মোবাইলে ফোনালাপ করতো। গত ১৪ এপ্রিল বিকালে বিজয় তার বাড়ী সংলগ্ন একটি মোড়ে এসে মোবাইল ফোনে বলে আমি অপেক্ষা করছি তুমি আস। সে সরল মনে বিজয়ের সাথে দেখা করতে যায়। দেখা হবার পর বিজয় তাকে রিকশায় করে ঘুরতে অনুরোধ করে। সে নিষেধ করলেও বিজয় তাকে বাধ্য করে রিকশায় উঠতে। রিকশাটি কিছুটা নির্জন রাস্তায় পৌছতেই বিজয় তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে শরীরের বিভিন্ন স্থানে হাত দিতে শুরু করে। এক পর্যায়ে সে চিৎকার করে। এতে স্থানীয়রা এগিয়ে আসে। অবস্থা বেগতিক দেখে বিজয় দৌড়ে পালিয়ে যায়।
অপরদিকে, পহেলা বৈশাখ উদ্যাপনের লক্ষে একই দিন সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বিদ্যালয়ে আসার জন্য নিজ ঘরে স্কুল ড্রেস পরছিলো সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রী (১৪)। ওই সময় রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকান্তপুর ইউনিয়নের রায়নগর গ্রামের প্রভাবশালী আব্দুল সামাদ খানের রাজমিস্ত্রী ছেলে ফারুক খান (৩৮) প্রবেশ করে। সেই সাথে লম্পট ফারুক ওই ছাত্রীর শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাতদেবার পাশাপাশি ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। মেয়েটির চিৎকারে পরিবারের সদস্যরাসহ স্থানীয়রা এগিয়ে এলে লম্পট ফারুক পালিয়ে যায়।
রাজবাড়ী জেলা শহরের শেরে বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম বলেন, তাদের বিদ্যালয়ে উৎসব মুখর পরিবেশে পহেলা বৈশাখ উদ্যাপন করা হয়। ওই দিন বেশির ভাগ ছাত্রীই উপস্থিত ছিলো। তবে গত রবিবার ছিলো স্কুল বন্ধ। গতকাল সোমবার সকালে ওই ছাত্রী বিদ্যালয়ে আসে এবং তাদের বলে স্যার আমাকে বাঁচান। আমি ওই নরপশুর বিচার চাই। যে কারণে তারা তাৎক্ষণিক বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করি এবং ওই ছাত্রীসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে সদর থানায় যাই। সেই সাথে লম্পট ফারুকের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।
রাজবাড়ী জেলা শহরের শেরে বাংলা উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ডাঃ রহিম মোল্লা বলেন, তারা ব্যক্তিগত ভাবে খোজ নিয়ে জেনেছেন লম্পট ফারুকের ২ ছেলে ও ১ মেয়ে সন্তান রয়েছে। তার চারিত্রিক বৈশিষ্ঠ জঘন্য রকমের। এলাকায় আরো কয়েকজন নারী ও মেয়ের সাথে সে জোর পূর্বক অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে। তবে তারা পারিবারিক ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ সাহস পায়নি ঘটনাটি পুলিশকে জানাতে। এই ছাত্রী অনেক মেধাবী এবং সাহসী। সে তাদের কাছে বিষয়টি বলেছে এবং ওই লম্পটের বিচার দাবী করেছে। যে কারণে তারা জেলা পুলিশের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের সাথে আলাপ করে থানায় এসেছেন।
রাজবাড়ী থানার ওসি (তদন্ত) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর বলেন, কলেজ ছাত্রীকে যৌনহয়রানী করার অভিযোগে যুবক বজলুর রহমান বিজয়কে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অপর ঘটনায় তারা লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। একই সাথে আসামিদের গ্রেপ্তার করার চেষ্টা চালাচ্ছেন।

(Visited 286 times, 1 visits today)