ভালো নেই বালিয়াকান্দির বাগদী সম্প্রদায়ের মানুষ গুলো –

রুবেলুর, ইমরান, আতিয়ার, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

ভালো নেই রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নে বসবাসরত ক্ষুদ্র্র নৃ-গোষ্ঠী বাগদী সম্প্রদায়ের পরিবারগুলো। এ সম্প্রদায়ের জন্য সরকারের বিভিন্ন ধরনের সাহায্য সহযোগিতা বরাদ্দ থাকলেও তারা সেটা পাচ্ছেন না। বরং তাদের মাথা গোঁজার সামান্য জমিটুকুও একটি প্রভাবশালী চক্র হাতিয়ে নেয়ার পায়তারা করছে।
জামালপুর ইউনিয়নের আলোকদিয়া ও ডাংহাতি মোহন এলাকায় প্রায় ৪ থেকে ৫শ আদিবাসী পরিবার বসবাস করেন। বর্তমানে এরা নরসুন্দর ও দিনমজুরের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। এছাড়া মাছ ধরেও চলছে অনেকের সংসার। অনেক অভাব অনটনের পরও সন্তানদের পড়াশােনা করাচ্ছেন তারা।
কথা বলে জানা যায়, জামালপুরে বহু আগে থেকেই বসবাস করছে বাগদী সম্প্রদায়ের মানুষ। কিন্তু এখন একটি প্রভাবশালী চক্র তাদের জমি-জমা দখল করে নেয়ার চেষ্টা করছে। অনেক কষ্ট করে তারা তাদের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সংসার চালান। তাদের জন্য সরকারের বিভিন্ন ধরনের সাহায্য সহযোগিতা বরাদ্দ থাকলেও তারা সেটি পান না।
জামাপলপুর আদিবাসী জনগোষ্ঠীর সভাপতি সুশান্ত সরকার জানান, এখানে যারা বসবাস করে তাদের অনেকের ঘর, টিউবওয়েল, শৌচাগার নেই। বাস্তুহারাদের মতো জীবনযাপন করেন তারা। এছাড়া অনেকের জায়গা-জমি নিয়ে সমস্যা রয়েছে যার কোনো সমাধান হচ্ছে না। তাদের সমস্যাগুলো সমাধানে সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন তিনি।
বাংলাদেশ ভূমিহীন আন্দোলন কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. নাছির উদ্দিন জানান, জামালপুরে যেসব আদিবাসী আছে তারা আজ নির্যাতিত ও অবহেলিত। সরকারের প্রতি এসব আদিবাসীদের একত্র করে সুষ্ঠু সাভাবিক জীবনযাপন করতে সব ধরনের সুযোগ সুবিধা দেয়ার অনুরোধ জানান তিনি।
বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ জানান, আদিবাসীদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে প্রতিবছর যে অনুদান আসে সেই অর্থ দিয়ে আদিবাসীদের শিক্ষা, স্যানিটেশন, বাসস্থানসহ বিভিন্ন সুবিধা দেয়া হয়। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রতিবন্ধী, বয়স্ক ও বিধবা ভাতা দেয়া হয়। সঠিকভাবে তারা সেগুলো পাচ্ছে কিনা সে বিষয়ে তদারকি করা হয়। এছাড়া দরিদ্র ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির সন্ধান পেলে তাৎক্ষণিক তাদের খোঁজ খবর নিয়ে সহায়তা করার চেষ্টা করেন।
বালিয়কান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাসুম রেজা জানান, জামালপুর এলাকায় বেশ কিছু আদিবাসী রয়েছে। বর্তমান সরকার তাদের জন্য বিভিন্ন সহযোগিতামূলক প্রকল্প গ্রহণ করেছে। স্থানীয় প্রভাবশালীরা বল প্রয়োগের মাধ্যমে আদিবাসীদের ভিটেমাটি ছাড়তে বাধ্য করছে এমন খবরে উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে তাৎক্ষণিক ব্যাবস্থা নেয়া হয়েছে।
আদিবাসীদের যেকোনো সমস্যায় প্রশাসন তাদের পাশে ছিল এবং থাকবে। তাদের সহযোগিতার বাইরে যদি কোনো আদিবাসী থেকে থাকে খোঁজ খবর নিয়ে তাদেরকে সহযোগিতা করা হবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

(Visited 64 times, 1 visits today)