রাজবাড়ীর আলাদীপুর থেকে এক নারীর গণধর্ষণের পর হত্যা করা লাশ উদ্ধার –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

গত রবিবার রাতে সদর উপজেলার আলীপুর ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন আলাদীপুর বাজার এলাকায় ঘোড়াঘুরি করতে থাকা আঞ্জু বেগম (৪৬) নামে এক নারীকে তুলে নিয়ে গণ ধর্ষণের পর তার শরীরেরই কাপড় দিয়ে স্বাসরোধে হত্যা করার মত মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ওই নারীর লাশ উদ্ধার করে তা ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে। আঞ্জু বেগমের স্বামীর নাম আকবর আলী। বাড়ী একই ইউনিয়নের আলাদীপুর ব্রীজপাড়া গ্রামে।

এদিকে, লাশ উদ্ধারের পর আজ বিকালে পুলিশ সুপার আসমা সিদ্দিকা মিলি বিপিএম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাকিব খান, সদর থানার ওসি তারিক কামালসহ জেলা পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কিছুটা মানসিক প্রতিবন্ধী ছিলেন ২ ছেলে ও ২ মেয়ে সন্তানের জননী আঞ্জু বেগম। যে কারণে তিনি বাড়ীতে মাঝে মধ্যেই বের হয়ে এদিক সেকে ঘুরে বেড়াতেন এবং মাঝে মধ্যে তিনি আলাদীপুর বাজারে অবস্থান করতেন। গত রবিবার রাত ৯টা পর্যন্ত আঞ্জু বেগমকে ওই বাজার এলাকা ঘোড়াঘুরি করতে দেখা যায়। এর পর থেকে তাকে আর বাজারে দেখা যাচ্ছিল না। অনেকেই ধারনা করেন হয়তো সে বাড়ী ফিরে গেছে। এরই মাঝে আজ সোমবার দুপুরে ওই বাজারে অবস্থিত আলীপুর ইউনিয়ন পরিষদের পেছনে থাকা বর্তমান ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শওকত হাসানের মেহগনী বাগানে আঞ্জু বেগমের লাশ পরে থাকতে দেখা যায়। আঞ্জু’র শরীরের থাকা কাপড় চোপরের অবস্থা দেখে বোঝা যায় তাকে ওই বাজার থেকে তুলে এনে অজ্ঞাত দূর্বৃত্তরা পালাক্রমে ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের পর আঞ্জুকে তারই শরীরে থাকা কাপড়ে একাংশ দিয়ে স্বাসরোধে হত্যার পর পালিয়ে যায়। তাদের ধারনা আঞ্জু কোন ভাবে ওই দূর্বৃত্তদের চিনে ফেলেছিলো যে কারণে তাকে তারা হত্যা করে।

তার নিজ মেহগনী বাগানের ওই লাশ পাওয়ার কথা জানিয়ে আলীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শওকত হাসান জানান, তাদেরও ধারনা আঞ্জু বেগমকে ধর্ষণের পর হত্যা করার সম্ভবনাই বেশি।

রাজবাড়ী থানার ওসি (তদন্ত) কামাল হোসেন ভুইয়া জানান, দুপুরেই লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে। তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে কি না তা ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরই বলা সম্ভব হবে। ওই ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

(Visited 1,110 times, 2 visits today)