রাজবাড়ীর চন্দনীতে গৃহবধুকে হত্যার অভিযোগ –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

গ্রাম্য সালিসে বিরোধ মিমাংশার পর দিন রাজবাড়ীতে কোহিরন বেগম (২৭) নামে এক গৃহবধুকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল সোমবার সকাল ১০টার দিকে সদর উপজেলার চন্দনী ইউনিয়নের ডাউকী গ্রামে ওই ঘটনা ঘটে। পুলিশ বিকালে লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে।
জানাগেছে, প্রায় ১১ বছর আগে একই ইউনিয়নের ধাওয়াপাড়া গ্রামের আব্দুল জব্বার মোল্লার মেয়ে কোহিরন বেগমের সাথে ডাউকী গ্রামের কৃষক মনা ফকিরের বিয়ে হয়। বর্তমানে তাদের সংসারে আহাদ ফকির (৯) এবং মুন্নি (৩) নামে দুইটি সন্তান রয়েছে।
গতকাল দুপুরে রাজবাড়ী থানায় অবস্থানরত কোহিরনের ছোট ভাই মিরাজুল ইসলাম মোল্লা বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে তার বোনের সাথে মনা ফকিরের পারিবারিক কলহ সৃষ্টি হয়। যা চুড়ান্ত আকারে পৌছায় এবং স্থানীয় ভাবে তা মিমাংশার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। যার অংশ হিসেবে গত রবিবার সন্ধ্যায় স্থানীয় ডাউকী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে এক গ্রাম্য সালিশ অনুষ্ঠিত হয়। ইউপি চেয়ারম্যান একেএম সিরাজুল আলম চৌধুরী, ইউপি মেম্বার হালিমসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। তারা মনা ও কোহিরণের মধ্যে মিলমিশ করিয়ে দেয়। ওই ঘটনার পরও মনা তার বোনকে নির্যাতন করে হত্যার পর লাশ ঘরের ছাপড়ার আড়ার সাথে ঝুলিয়ে রাখে। ওই ঘটনার পর তারা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তার বোনের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান।
সদর উপজেলার চন্দনী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান একেএম সিরাজুল আলম চৌধুরী জানান, পারিবারিক বিরোধ গ্রাম্য সালিশে মিমাংসা করে দেয়া হয়। ওই ঘটনার পর দিন মেয়েটির ঝুলন্ত লাশ পাওয়া যায়।
রাজবাড়ী থানার এসআই জাহিদুল ইসলাম জানান, লাশটির সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করা হয়েছে। সেই সাথে লাশটি উদ্ধার করে তা ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরই বলা যাবে কোহিরন আতœহত্যা করেছে না কি তাকে হত্যা করা হয়েছে।

(Visited 52 times, 1 visits today)