প্রশ্নপত্র ফাঁসের কারণে শিক্ষামন্ত্রী ও শিক্ষাপ্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবী করলেন খৈয়ম-

রুবেলুর রহমান,রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

 

বিএনপির জাতীয় কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, রাজবাড়ী জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়ম বলেছেন, সিভিল সার্ভিসসহ এমন কোন স্থান নাই যেখানে প্রশ্নপত্র ফাঁস হচ্ছে না। সুতরাং শিক্ষামন্ত্রী ও সদ্য নিয়োজিত শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী তাদের পদত্যাগ করা উচিত। তারা একসাথে এ গোটা শিক্ষা ব্যবস্থার বারোটা বাজাচ্ছে এবং ধ্বংস করছে। লজ্জা থাকলে তারা এত সময় পদত্যাগ করতেন।
শনিবার দুপুরে তার নিজ বাসভবনে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার দূর্ণীতি মামলায় ৫ বছরের সাজা দেওয়া এবং তাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসুচীতে পুলিশি বাঁধার প্রতিবাদে এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়ম বলেন, বিসিএস পরীক্ষা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পরীক্ষা, এসএসসি, এইচএসসি, জেএসসি, পিএসসিসহ সকল পরীক্ষার প্রশ্নপত্র আজ ফাঁস হচ্ছে। কিন্তু তারা বলছেন কোন প্রশ্নপত্র ফাঁস হচ্ছে না।
খৈয়ম বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় শুধু মাত্র হয়রানি ও রাজনীতি থেকে দুরে রাখতে এ রায় দিয়েছেন। কেন্দ্রের নির্দেশে তারা শান্তিপূর্ণ কর্মসুচী পালন করতে চাইলেও পুলিশি বাঁধায় তা পারছেন না। গত দুই দিনে জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আফসার আলী সরদারসহ তাদের বহু নেতাকর্মীকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। এছাড়া নেতাকর্মীদের বাড়ীতেও হানা দিচ্ছে পুলিশ। তাহলে এটা কি গণতন্ত্র? মিথ্যা মামলায় বেগম খালেদা জিয়ার এ রায়কে কেন্দ্র করে রাজবাড়ীর যেসকল নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের মুক্তি দাবী করেন। এছাড়া আইনের মাধ্যেমে বেগম খালেদা জিয়ার জামিন করাবেন এবং আগামী নির্বাচনে বর্তমান সৈরাচারী সরকারের কথা উল্লেখ করে জনগনের ভোটের মাধ্যমে তাদেরকে ক্ষমতা থেকে হটাবেন।
তিনি আরো বলেন, গতকাল তিনি রাজবাড়ীতে আসবেন শুনে পুলিশ সারারাত তার বাড়ী ঘিরে রেখেছিলেন। তাই পুলিশকে উদ্দ্যেশে করে বলেন গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে তাদের অধিকার আছে সভা, সেমিনার ও কর্মসূচী পালন করার কিন্তু পুলিশ তাতে বাঁধা দিচ্ছে। এ সময় তাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি বাঁধা না দিয়ে সহযোগীতা করার আহ্বান জানান।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ রোকন উদ্দিন চৌধুরী, এ্যাডঃ আসাদুজ্জামান লাল, এ্যাডঃ লিয়াকত আলী, সদর উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক কেএ সবুর শাহিন প্রমূখ।
তবে খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে জানমালের নিরাপত্তা ও বিএনপি-জামায়াত কর্মীরা যেন কোন নাষকতা সৃষ্টি করতে না পারে সে জন্য সতর্ক অবস্থায় রয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। জেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থান, জেলা বিএনপি কার্যালয়সহ বিভিন্নস্থানে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অবস্থান করতে দেখাগেছে। এছাড়া সার্বক্ষনিক তাদেরকে বিভিন্নস্থানে টহলরত অবস্থায়ও দেখা গেছে।
জেলা পুলিশ প্রশাসন সুত্রে জানাগেছে, গত ৪৮ ঘন্টায় জেলার বিভিন্নস্থান থেকে পুলিশের চলমান বিশেষ অভিযানে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামীসহ বিভিন্ন মামলার ৪৯ জনকে গ্রেফতার করেছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় ২২জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
রাজবাড়ীর সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আসাদুজ্জামান আসাদ জানান, পুলিশ সুপার সালমা বেগম পিপিএম এর নির্দেশে জনগনের জানমাল নিরাপত্তার জন্য তারা সার্বক্ষণিক দ্বায়িত্ব পালন করছেন। তাছাড়া খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র জেলার কোথাউ কোন নাষকতা যেন না হয়, সে জন্য তারা সতর্ক রয়েছেন। এছাড়া পুলিশ বিশেষ অভিযানে গত ২৪ ঘন্টায় জেলার বিভিন্নস্থান থেকে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামীসহ বিভিন্ন মামলার ২২ জনকে গ্রেফতার করেছে।

(Visited 794 times, 1 visits today)