গোয়ালন্দের কিশোরীকে তুলে ফরিদপুরে নিয়ে গণধর্ষণ ! –

আজু সিকদার, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে এক কিশোরী (১৪) কে গত বুধবার রাতে ফরিদপুর সদর উপজেলার দুর্গাপুর এলাকায় তুলে নিয়ে দুই যুবকের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হওয়ায় শিশুটি ও তার পরিবার মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছে।
বৃহস্পতিবার ওই শিশুটি জানায়, ফরিদপুর সদর উপজেলার ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের গোয়ালটিলা ফেদু মাতুব্বার পাড়ার শুকুর আলীর ছেলে আনিসের সাথে কয়েক মাস ধরে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে ওঠে। আনিস ঢাকার একটি পোষাকের দোকানে কাজ করে। দরিদ্র পরিবারের সুযোগ নিয়ে গত বুধবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে আনিস তার সাথে দেখা করতে চায় বলে আনিসের বন্ধু রাসেল সিকদার (২৫) নামের এক যুবক ফোন করে। প্রথমে আপত্তি জানালেও পরে রাজি হয় সে। রাসেল বাড়ির অদূরে বেড়িবাঁধে অপেক্ষা করছে বলে জানালে শিশুটি বেড়িবাঁধে যায়। সেখান থেকে মোটরসাইকেলে তুলে তাকে ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের দুর্গাপুর এলাকার একটি কলাবাগানে নিয়ে যায়। সেখানে আনিসকে দেখতে না পেয়ে শিশুটি চিৎকার করার চেষ্টা করলে সেখানে আগে থাকা আরেক যুবক ও রাসেল তাকে চাকু দিয়ে হত্যার ভয় দেখিয়ে মুখ চেপে ধরে। এক পর্যায়ে শিশুটিকে দুইজনে পালাক্রমে ধর্ষণ শেষে তার মোবাইল ফোনটি ছিনিয়ে নেয় এবং এ কথা কাউকে জানালে খুন করে ফেলার হুমকি দেয়। এরপর তারা তাকে রাস্তায় তুলে বাড়ি চলে যেতে বলে। অনেক কষ্টে সে সেখান থেকে দীর্ঘ পথ পায়ে হেঁেট বাড়ি ফিরে আসে এবং পরিবারকে জানায়।
শিশুটির মা বলেন, আমরা গরিব মানুষ বলে কার কাছে বিচার চামু। আমার মাইয়াকে যারা সর্বনাশ করেছে আল্লাই তাদের বিচার করবো। গ্রামে জানাজানি হওয়ায় অহন আমি এ মাইয়ারে নিয়া কই যামু।
অভিযুক্ত ফরিদপুরের দুর্গাপুর সিকদার ডাঙ্গীর মাইনদ্দিন সিকদারের ছেলে রাসেল সিকদার অভিযোগ অস্বীকার করে জানায়, গত বুধবার সন্ধ্যার পর স্থানীয় একটি অনুষ্ঠানের ব্যাস্ত ছিলাম। আনিস ও ওই মেয়ের প্রেমের সর্ম্পক আছে জানলেও ধর্ষনের বিষয়টি আমাদের কারো জানানেই।
এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মির্জা আবুল কালাম আজাদ জানান, এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকলে আইন অনুযায়ী ঘটনাস্থল ফরিদপুরে হওয়ায় তাদেরকে ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় আইনগত পদক্ষেপ নিতে হবে।

(Visited 220 times, 1 visits today)