রাজবাড়ীর ভবদিয়ায় এক ছাগলের ছয় বাচ্চা –

লিটন চক্রবর্তী, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

 

রাজবাড়ীতে একটি ছাগলের ছয়টি বাচ্চা জন্ম নিয়েছে। দুই মাস আগে জন্ম নেয়া বাচ্চা গুলো সুস্থ ও সবল রয়েছে।
জানাগেছে, রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাট ইউনিয়নের পশ্চিম ভবদিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে ও কাঠ মিস্ত্রী আবুল হোসেনের বাড়ীতে ওই ঘটনা ঘটেছে। প্রতিদিনই অনেক লোক আসছে ওই বাচ্চা গুলো দেখতে।
ছাগল মালিকের স্ত্রী সাজেদা বেগম বলেন, আট বছর আগে তিন হাজার টাকা দিয়ে প্রতিবেশির কাছ থেকে একটি ছাগল তিনি কেনেন। প্রথম বছর দুইটি এভাবে পর্যায়ক্রমের বিগত বছর পর্যন্ত চারটি করে বাচ্চার জন্ম দেয় ওই ছাগলটি। তবে এবারই প্রথম ছাগলটি এক সাথে ছয়টি বাচ্চা প্রসব করে। এর মধ্যে দুই একটি বাচ্চার অবস্থা খুব একটা ভাল ছিলো না। তবে তাদের যতেœর কারণে বর্তমানে ছয়টি বাচ্চাই সবল ভাবে বেঁচে আছে। শুরুতে বাচ্চা গুলোকে সংগ্রহ করা দুধ, সুজি ও এখন গমের ভূষি খাওয়াচ্ছে। তাতে প্রতিদিন বাচ্চা গুলোর পেছনে তারা দুই শত টাকা করে ব্যয় করছেন।
কাঠ মিস্ত্রী আবুল হোসেন বলেন, তাদের বাড়ীতে আরো ১৩টি ছাগল রয়েছে। তবে এর মধ্যে ওই ছাগলটি দেশি উন্নত প্রজাতির একটি ছাগল। প্রতিদিনই লোক আসছে ওই ছাগলের বাচ্চা গুলো দেখতে। উন্নত জাত হওয়ায় আগতদের কেউ কেউ এই বাচ্চা গুলো কিনতে চাইছে। চারটি খাশি এবং দুইটি বকরি’র বাচ্চা’র প্রতিটির পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত দাম বলছে। তবে অল্প কিছু দিন যতœ নিয়ে লালন-পালন করতে পারলে বাচ্চা গুলো আরো অধিক দামে তিনি বিক্রি করতে পারবেন। সে কারণে আগতদেও কাছে এ বাচ্চা গুলো তিনি বিক্রি করছেন না।
বাচ্চা গুলো দেখতে আসা স্থানীয় বাসিন্দা মুকুল মল্লিক, ওমর মল্লিক, রহম মল্লিক বলেন, তারা ছাড়াও অনেকেই এসেছেন ওই বাচ্চা গুলো দেখতে। কেউ কেউ এই বাচ্চা কিনে লালন-পালন করতে চাইছে। তারা আরো বলেন, সাধারণত ছাগলের তিন থেকে চারটি বাচ্চা হয়ে থাকে। অথচ এ ছাগল ছয়টি বাচ্চা জন্ম দিয়েছে। বিষয়টি অনেকটাই অস্বাভাবিক ও চাঞ্চল্যকর ব্যাপার বলেও তারা অবহিত করেন।
রাজবাড়ী প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের ভেটেরিনারী সার্জন খায়ের উদ্দিন আহম্মেদ জানান, তিনি ওই বাচ্চা গুলো সম্পর্কে অবগত। তিনি দীর্ঘ দিন চাকুরী করছেন। এ দীর্ঘ সময়ে তিনি ছাগলের পাঁচটি বাচ্চা জন্ম নিতে দেখেছেন। তবে এই প্রথম তিনি ছয়টি বাচ্চা জন্ম নেয়া দেখলেন। ছাগল মালিক ও তার পরিবারের সদস্যরা অধিক যতœশীল হওয়ায় বাচ্চা গুলো সুস্থ্য ও সবল রয়েছে।

(Visited 110 times, 1 visits today)