প্রাইভেট ও কোচিং বন্ধ করে শিক্ষার মানোন্নয়ন করতে হবে -রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক –

সোহেল রানা, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

 

গতানুগতিক শিক্ষার পাশাপাশি মানোন্নয়নে কাজ করতে হবে। ভালো রেজাল্ট না করলে শিক্ষকদের বেতন বন্ধ করা হচ্ছে। সব বিদ্যালয়কে ভালো ফলাফলসহ বৃত্তির সংখ্যা বাড়াতে হবে। ভালো ছাত্র ও ভালো শিক্ষকদের সম্মান সবাই করে। আপনারা ভালো ছাত্র তৈরী করলে আপনাদেরকেও সম্মান করবে। যে সকল স্কুল ভালো রেজাল্ট করেছে তাদের ধন্যবাদ, আর যারা খারাপ করেছেন তারা আগামীতে ভালোর কাতারে আসার চেষ্টা করুন। শিক্ষার হার বেশি থাকলে সে অঞ্চলে বড় সরকারী চাকুরী বেশি থাকে। তখন রাজনীতিবিদ, জনপ্রতিনিধিরা সঠিক পথে চলতে বাধ্য হবে, এলাকা এগিয়ে যাবে। শিক্ষার মানোন্নয়নে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি, শিক্ষকদের আন্তরিকতার সহিত নিয়মিত পাঠদান, অভিভাবকদের সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। প্রাইভেট, কোচিং সরকার উঠিয়ে দিয়েছে। অনুসরনীয় শিক্ষক হওয়ার চেষ্টা করুন। আগের শিক্ষকদের মতো দুরাবস্থা নেই আপনাদের। শুধু পাশের হার বাড়ালেই চলবে না। প্রতিটি স্কুলে বৃত্তি পাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। আজ যারা খারাপ ছাত্র মনে করছেন ওরাই মেধাবী, তাদেরকে সঠিক ভাবে পাঠদান করান। তাহলে শিক্ষার মানোন্নয়ন সম্ভব হবে। সোমবার বিকালে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত প্রাথমিক শিক্ষার গুনগত মান-উন্নয়নে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক মোঃ শওকত আলী এসব কথা বলেন।
“ শিক্ষা নিয়ে গড়বো দেশ, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ” এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে মতবিনিময় সভা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম রেজার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কালাম আজাদ, রাজবাড়ীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ( শিক্ষা ও আইসিটি) মোঃ সাদেকুর রহমান, রাজবাড়ী জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ তৌহিদুল ইসলাম। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ হারুন অর রশিদ মানিক, উপজেলা শিক্ষা অফিসার সিরাজুল ইসলাম বিশ্বাস, জঙ্গল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নৃপেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, বালিয়াকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ নায়েব আলী শেখ, নারুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুস সালাম, বহরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ রেজাউল করিম, উপজেলা শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোঃ শহিদুল ইসলাম, বালিয়াকান্দি মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক চাঁদ সুলতানা, সহকারী শিক্ষক শাহীন আল মাসুদ, নারুয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল গফফার মন্ডল, পাটুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দিপালী সরকার প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতেই উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের প্রাথমিক শিক্ষার মান যাচাই করেন জেলা প্রশাসক। শিক্ষকদের সাথে খোলা-মেলা আলোচনা ও বিভিন্ন প্রশ্ন ছুড়ে দেন। শিক্ষার মানোন্নয়নে শিক্ষকদের ভুমিকা যাচাই বাছাই করেন। এসময় মনি-মুকুর কিন্ডার গার্টেনের অধ্যক্ষ খোন্দকার রফিকুদৌলা বাবলুর নিকট থেকে তার স্কুলের ভালো রেজাল্ট সম্পর্কে বক্তব্যে শোনেন।
প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জেলা প্রশাসক মোঃ শওকত আলী শিক্ষকদের আরো বলেন আপনারাই ভালো ছেলে-মেয়ে তৈরী করতে না পারলে ভালো চাকুরী করতে পারবে না। যারা ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পায়, তারাই বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়। বৃহত্তর ফরিদপুরে কোঠা ছাড়া কমই বিসিএসে উত্তীর্ণ হচ্ছে। এজন্য প্রতিটি ছাত্রকে নিজের সন্তানের মতো মানুষ করে গড়ে তুলতে হবে। প্রতিটি স্কুলে সততা ষ্টোর চালুর ব্যবস্থা করতে হবে। এতে সত্য কথা বলা শিখে ভবিষ্যতে মানুষ হতে পারবে। স্কুল চলাকালীন সময়ে কোচিং করা যাবে না। রাজবাড়ী সদরে মক্তব স্কুলে প্রকাশ্যে কোচিং চলে। তা বন্ধ করা হবে। মনে রাখবেন গণিত, ইংরেজি ও কম্পিউটার যে জানবে সে কখনো ভাতে মারা যাবে না। শিক্ষকদের ছেলে-মেয়েদের নিজের স্কুলে পড়াতে হবে। মাসে অন্তত ১টি করে পরীক্ষা নেন,নিয়মিত অভিভাবক সমাবেশ, ম্যানেজিং কমিটির তদারকি, নোট-গাইড বই নিষিদ্ধকরণ, পাঠ্যবই পড়ার উৎসাহ সৃষ্টি করতে পারলে শিক্ষার মানোন্নয়ন দ্রুত সম্ভব হবে।

(Visited 53 times, 1 visits today)