রাজবাড়ীতে দুই শিশু উদ্ধার –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

rajbari-3-15-09

ঈদ ছুটির মধ্যে রাজবাড়ী থানা পুলিশের সদস্যরা দুই জন শিশুকে উদ্ধার করেছে। উদ্ধার করা বায়েজিদ বোস্তামি নামে ৭ বছর বয়সী শিশুটির শুধুমাত্র নামটিই জানা সম্ভব হয়েছে। তবে তার পাওয়া যায়নি অন্যকোন পরিচয়। অপর দিকে, চতুর্থ শ্রেণীতে পড়–য়া অপর শিশু মুস্তাকিম খানের পরিচয় পাওয়া গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত শিশু দু’টি রাজবাড়ী থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে বলে জানাগেছে।
রাজবাড়ী থানার ওসি আবুল বাসার মিয়া জানান, গত ১০ সেপ্টেম্বর রাত ১১ টার দিকে জেলা শহরের বিনোদপুর গ্রামের জনৈক মুক্তার হোসেন এলোমেলো ভাবে ঘোড়াঘুরিসহ শিশু বায়েজিদ বোস্তামিকে পান। পর দিন মুক্তার হোসেন শিশুটিকে জেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের কার্যালয়ে নিয়ে যান এবং তাদের কাছে শিশুটিকে হস্তান্তর করেন। বিষয়টি জেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের কার্যালয়ে প্রবেশন কর্মকর্তা মনির হোসেন রাজবাড়ী থানাকে লিখিত ভাবে জানায়। শিশুটি তার বাড়ী নরসিংদীতে বলে জানালেও বলতে পারেনা তার বাবা-মার নাম। তবে তার খালার নাম শাহিনা ও খালুর নাম মিলন বলতে পারে। তাকে রাজবাড়ী শিশু পরিবারের বর্তমানে রাখা হয়েছে। তবে তাকে ফরিদপুর সেফহোমে রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে।
অপরদিকে, সৎ মায়ের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে গত ৬ সেপ্টেম্বর সাতক্ষিরা জেলার হাজিপুর গ্রামের নুজরুল খানের চতুর্থ শ্রেণীতে পড়–য়া শিশু সন্তান মুস্তাকিম খান (১০) বাড়ী থেকে পালিয়ে রাজধানী ঢাকায় চলে আসে। তার সাথে দেখা হয় রাজবাড়ী জেলা সদরের বাণিবহ এলাকার জনৈক এক ব্যক্তির। ওই ব্যক্তি তাকে রাজবাড়ীতে নিয়ে আসে এবং গত বুধবার তাকে থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়।
হাজিপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র মুস্তাকিম খান জানায়, তারা তিন বোন, এক ভাই। পাঁচ বছর আগে তার মা পারভীন বেগম মারা যান। সম্প্রতিক সময়ে তার বাবা খাদিজা বেগম নামে এক মহিলাকে বিয়ে করেছে। তাদের সংসারে সৎ মা আসার পর পরই তারা সকল ভাইবোন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। যে কারণে সে বাড়ী থেকে পালিয়েছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে রাজবাড়ী থানার ডিউটি অফিসার এএসআই ইব্রাহিম বলেন, মুস্তাকিমের পরিবারের সদস্যদের জানানো হয়েছে। তারা এলে তাকে তাদের হাতে তুলে দেয়া হবে।

(Visited 74 times, 1 visits today)